ব্যাকগ্রাউন্ড

ফেইসবুকে!

ব্যক্তিগত সততা যেখানে সততার পক্ষে যায় না

বিজ্ঞানী অটোহান যখন দেখলেন যে, একটি পরমাণুকে ক্রমাগত বিভক্ত করে বিপুল শক্তি উৎপন্ন করা যায়, তখন তিনি সেটা তার এক বন্ধুকে চিঠিতে জানালেন। সেই বন্ধু করলো কি, থিসিসটা আমেরিকার বিখ্যাত সব পত্রিকায় প্রচার করে দিলো। সেই সূত্র ব্যবহার করে আমেরিকা পরবর্তীতে পারমাণবিক বোমা আবিষ্কার করে, এবং জাপানে এর সফল প্রয়োগ ঘটায়।
.
ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হলো, অটোহান এসবের কোনো কিছুর প্রতিই সমর্থন দেন নি। কিন্তু যেহেতু পৃথিবী ও তার পলিটিক্সের কোনো ঘটনাক্রমই অটোহানের নিয়ন্ত্রণে ছিল না। ফলে তার গবেষণাকে ব্যবহার করে তার অনিচ্ছাতেই মানব সমাজের সবচেয়ে বিধ্বংসী অস্ত্রটা বানানো হলো। যে কারণে অটোহানকে যুদ্ধাপরাধের মামলার আসামীও হতে হয়েছিল। পারমাণবিক অস্ত্র তৈরিতে তার কোনো সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় পরবর্তীতে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। তারপরেও মানুষ অটোহানকেই পারমানবিক বোমার আবিষ্কারক হিসেবে বলে, এবং এ জন্য তাকে দায়ীও করে। অর্থাৎ, একজন মেধাবী, মননশীল, সহানুভূতিশীল ও মানবিক মানুষ হয়েও অটোহান অনেকের কাছে ঘৃণার পাত্র। যেমন, জাপানের লোকেরা তাকে মন থেকে ক্ষমা করতে পারেনি।
.
আমাকে যে বিষয়টা ভাবায় সেটা হলো, আপনি মানসিকভাবে সৎ হলেও আপনার অনেক ব্যাপার যখন সমাজের ক্ষতির উৎস হয়ে দাঁড়ায়, তখন কিন্তু আপনি আর সৎ থাকেন না। এক লোক সক্রেটিসকে প্রশ্ন করেছিল, আচ্ছা ধরুন আপনি একজনের কাছ থেকে একটি ছুরি ধার নিয়েছিলেন, এবং একটি নির্দিষ্ট দিনে ফেরত দেওয়ার শর্তে প্রতিজ্ঞা করলেন। একদিন সেই মুহূর্ত এলো, এবং সে ছুরিটি ফেরত চাইলো। কোনো কারণে তখন সে উন্মাদ অবস্থায় ছিল। আপনি কি তখন আপনার প্রতিজ্ঞা রক্ষা করবেন, নাকি করবেন না? সক্রেটিস বললেন, প্রতিজ্ঞা পূরণ করা নৈতিকতা, তবে উন্মাদের প্রতিজ্ঞা রক্ষা করা ক্ষতিকর। কারণ, সেই ছুরিটি দ্বারা সে সমাজের ক্ষতি করবে। মানে ছুরি এখানে গুরুত্বপূর্ণ নয়, গুরুত্বপূর্ণ হলো, আপনি সেটা কাদের হাতে তুলে দিচ্ছেন, সেই বিষয়টা। এখানে, বিজ্ঞানী অটোহান মানসিকভাবে সম্পূর্ণ সৎ হলেও, তিনি তার পরমাণু বিভক্তির থিসিসটা অসৎ লোকের হাতে তুলে দিয়েছিলেন, এটাই তার অপরাধ, এবং বড় ভুল। যে কারণে ব্যক্তিগতভাবে সৎ হওয়া সত্ত্বেও তিনি আজীবন অনুশোচনায় দগ্ধ হয়েছেন, এবং মৃত্যুর পরেও শান্তিপ্রিয় মানুষদের চোখে তিনি দায়ী থেকেছেন।
.
আপনি ব্যক্তিগতভাবে সৎ হওয়াটাই আপনার সততা প্রমাণের জন্য যথেষ্ট নয়, আপনার একটি অসচেতন ভুল আপনার অনিচ্ছা সত্ত্বেও সমাজের বড় ক্ষতি করে ফেলতে পারে, সেই বিষয়টা নিয়ে সচেতন থাকাই এখানে গুরুত্বপূর্ণ। অটোহান তার পারমাণবিক থিসিস দুষ্ট লোকের হাতে তুলে দিয়ে হয়ত ভুল করেছিলেন, কিন্তু আমরা আমাদের সমাজ, রাষ্ট্র ও সভ্যতাকে দুষ্ট লোকদের হাতে তুলে দিয়ে কি একই ভুল করে যাচ্ছি না? এবং অটোহানের মতোই আমরা ভাবছি, আমি তো সৎ!

সংকলিত। মূল লেখা: আনসারি তৌফিক

ছবি
সেকশনঃ রাজনৈতিক
লিখেছেনঃ যুক্তিযুক্ত তারিখঃ 10/09/2020
সর্বমোট 201 বার পঠিত
ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুণ

সার্চ

সর্বোচ্চ পঠিত

এই তালিকায় একজন লেখকের সর্বোচ্চ ২ টি ও গত ৩ মাসের লেখা দেখানো হয়েছে। সব সময়ের সেরাগুলো দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন