ব্যাকগ্রাউন্ড

ফেইসবুকে!

টিটির আত্মকাহিনী আর কিছু পাবলিকের স্বপ্নঃ

বাঙালির স্বভাবজাত চরিত্র হলো পরচর্চাকে শিল্প পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া, গুজবকে বিকশিত করা। এ কাজটি অবশ্য জন্মলগ্ন হতে জামাত আর দোসর শিবির সুন্দর সহি মতে ধর্মীয় বয়ানে ভালো পারে। ইদানিং বিএনপি কোন কোন ক্ষেত্রে জামাতকে ছাড়িয়ে যায়। আবার নব্য যারা লীগার তারাও এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। ভাই লীগ, চাচা ভাগ্নে লীগ অগ্রগন্য। নিজের ঘরে খবর নেই রাশিয়া উইক্রেন যুদ্ধ নিয়ে পড়ে থাকি অথচ এই যুদ্ধের কারনে সারা বিশ্বের সাথে দেশটাও যে সমস্যা হচ্ছে সে দিকে খবর নেই বরং সরকারকে দোষারোপের জায়গায় নামিয়ে দিচ্ছি। পাশের বাড়ি শ্রীলঙ্কার সরকার পতনের ঘটনায় এক শ্রেণীর মানুষ উল্লেসিত। তারা স্বপ্ন দেখছে তেমন কিছু হবে আর তারা ক্ষমতায় বসবে। অথচ ফিছন ফিরলে দেখা যাবে এ দেশের জনগণ আগেই তাদের টেনে হিচরে নামিয়ে কারো মাঞ্জা ভেংগে বিদেশ পাঠিয়েছে। কারো নামের আগে দৌড় যুক্ত হয়ে দৌড় সালাউদ্দিন হয়েছে। আবার কোন রাষ্ট্রপতি গণতন্ত্র আন্দোলনের পাদপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ ছাত্রদের জুতাপেটা খেয়েছে। সেই দলের এমন উল্লেসিত স্বপ্ন এর আগেও এদেশের জনগণ দেখেছে আরেক পাশের বাড়ির মোদির ক্ষমতা আহরণের সময়। একধাপ এগিয়ে অনেকে মিষ্টিও বিতরণ করেছে। নেট দুনিয়া অবশ্য শ্রীলংকার সরকার পতনের কারন হিসাবে এদেশের ঈদের পরে আন্দোলন ক্ষ্যাত পতন হিসাবে দেখছে। গত ৯ ঘন্টায় একজন রেলগাড়ির টিটি ২৯ হাজার টাকা আদায় করেছে বিনা টিকিটের যাত্রীদের কাছে হতে। টিটি মহোদয় ইদানিং খুবই ভাইরাল মান্যবরের স্ত্রীর কারনে। টিটি সাহেবকে সাধুবাদ জানাই এই মহান কাজটি করার জন্য। আমার প্রশ্ন গত ৯ ঘন্টা ছাড়া কি আর কোন দিন গত ৫০ বছরে সবাই টিকিট নিয়েই রেলে যাত্রা করেছে? বিনা টিকিটের কেউ যাত্রী হয়নি? সারাজীবন খাতায় না তুলে টাকা তো পকেটে তুলেছেন ঘটনাচক্রে সাধু হয়েছেন কি? বছর দের বা বেশী আগে তখন সিরাজগঞ্জ এক্সেপ্রেসে এসি বগি ছিলো। তখন চেষ্টা করতাম এসিতে চরে ভ্রমণ করার জন্য। বিশেষ করে বিগত ৬/৭ বছর ট্রেনেই যাতায়াত বেশী করার কারনে ট্রেনের অনেক কর্মকর্তার সাথে পরিচয় ছিলো। আর এই ট্রেনটি সিরাজগঞ্জবাসীর আন্দোলন ও সাবেক মন্ত্রী মরহুম জননেতা মোহাম্মদ নাসিম চাচা সহ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের চেষ্ঠার ফসল। সেই হিসাবে এই ট্রেনের প্রতি দরদ একটু বেশী। কেননা ট্রেনের জন্য প্রতিটি আন্দোলনে কাজ করেছি আমি। যাইহোক একদিন এয়ারেপোর্ট স্টেশন থেকে সিরাজগঞ্জ আসবো। টিকিট কাউন্টারে যে মুনসুর আলী , জামতৈল, বাজার স্টেশন কোন টিকিট পেলাম না। স্টেশনে ঢোকার পথেই একটি দোকান থেকে সুলভ চেয়ারের ২৪০ টাকার টিকিট কিনলাম ৩৫০ টাকা দিয়ে। সম্ভবতো ঘ বগিতে উঠে দেখি বেশীরভাগ সিট খালি। মাত্র কয়েকজন যাত্রী টিকিটে চেয়ে বেশী টিকিট ছাড়া যাত্রী । জয়দেবপুর স্টেশন ছাড়ার পর টিটি সাহেব আসলেন টিকিট চেক করতে। আমার এমনিতে রাগ হচ্ছিলো যে ট্রেনটাকে লস দেখানো ওছিলায় বার বার ট্রেনটি বন্ধ করা হয় সেই ট্রেনের টিকিট কাউন্টারে টিকিট থাকে না অথচ ট্রেনে টিকিটধারী যাত্রী কম আর টিকিট ছাড়া যাত্রী বেশী। আমি টিটিকে ফলো করতেছিলাম আমার টিকিট চেক করার পরই। টিটি মহোদয় সুন্দর ভাবে টাকা পকেটে তুলছেন আর তার হোমরা চোমরা দুজন আনসার আর দুজন সহকারী এর ওর সাথে দর মিটাচ্ছে। আমি সকল বিষয় যখন মোবাইলে ভিডিও করতেছি তখন একজন আনছার বিষয়টি দেখার পর টিটিকে বলার পর টিটির হুংকার সিট থেকে উঠে আসুন। আমিও চিৎকার করে বললাম আপনার প্রয়োজন থাকলে সিটের কাছে আসুন। উনি ব্যপক গরম নিয়ে আমার কাছে এসে মোবাইল চাইলেন। আমি বললাম আমার মোবাইল আপনাকে দিবো কেন? মহোদয় খুবই চোটপাট দেখিয়ে পুলিশের ভয় দেখিয়ে মোবাইল চাইলেন. আমি অনঢ় আমার মোবাইল আপনাকে দিবো কেন? উনি যুক্তি দেখালেন অনুমতি না নিয়ে ভিডিও ধারণ করে অপরাধ করেছি। আমি বললাম আপনি টিকিট ছাড়া যাত্রীদের কাছে হতে টাকা নিয়ে পকেটে ভরছেন কোন আইনে। টিটি সর্বশেষ ধমক দিয়ে যখন বললেন আমাকে পুলিশে দিবেন তখন শ্রেফ সিট থেকে দাড়িয়ে চিৎকার করে বলেছি তোর কোন বাপকে ডাকবি ডাক। টিটি সত্যি রেল পুলিশ ডাকলে। ঘটনা পুরা ট্রেনে ছড়িয়েছে। ট্রেনের অনেক কর্মকর্তা আসলেন তার মধ্যে পরিচিত সোহাগও ছিলো। এসআই উজ্জল নামে একজন আসলেন। উনার সাথে কথা বলে বুঝলাম টিটি সহ সবাই আমার পরিচয় কারো কাছে জেনেছেন। এসআই উজ্জল এসে প্রথমেই বললো ভাই আপনি এসি ছাড়া এখানে কেন? বললাম এসি টিকিট নাই তাই। উনি বললেন সমস্যা কি অমনি যাবেন। বললাম শাওন এসব করে না। টিটি এসে প্রকশ্যে সরি বললেন। ভিডিওটি ডিলেট করতে বললেন। ( যদিও ভিডিওটি তৎকালীন সহকর্মী স্বপনের কাছে হোয়াটসঅ্যাপ করে রাখছিলাম যাতে কোন কারনে ভিডিও ডিলেট করতে হয়। ট্রেন বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড় স্টেশনে থামার পর নিচে নামছি দুজন কনস্টেবল আর এসআই আমাকে কোলে তুলে টিটিদের কেবিনে নিয়ে গেল। কেবিনে বসার পর দেখি আমার ব্যাগ আগেই একজন নিয়ে আসছে আমার পাশের যাত্রীর কাছে ব্যাগের খোঁজ নিয়ে। যাই হোক আমিও অন্যান্য বাঙালির মত চা টা, চিপস্ , বাকী রাস্তা এসি কোচের ঘুষ নিয়ে বেমালুম সব ভুলে গেলাম। আম বাঙালি কয়দিন চিল্লাফাল্লা আর সরকারে ঘারে সকল দোষ তুলে দিবে, সরকার বিরোধী পক্ষ গুজব ছড়াবে আর সরকার পতনের স্বপ্ন দেখবে।

ছবি
সেকশনঃ সাধারণ পোস্ট
লিখেছেনঃ কেএম শাওন তারিখঃ 11/05/2022
সর্বমোট 488 বার পঠিত
ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুণ

সার্চ

সর্বোচ্চ মন্তব্যকৃত

এই তালিকায় একজন লেখকের সর্বোচ্চ ২ টি ও গত ৩ মাসের লেখা দেখানো হয়েছে। সব সময়ের সেরাগুলো দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন

সর্বোচ্চ পঠিত

এই তালিকায় একজন লেখকের সর্বোচ্চ ২ টি ও গত ৩ মাসের লেখা দেখানো হয়েছে। সব সময়ের সেরাগুলো দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন