ব্যাকগ্রাউন্ড

ফেইসবুকে!

জীবন থেকে নেওয়া ( পর্ব ৩)

(১) I was rearing up in an environment which was not limpid and covered by stench, dirty, noise, ugliness and disorder etc. I hate that environment. (২) Sometimes to lead a life in the earth becomes more difficult than to leave from the earth. (৩) আমার যদি মহাভারতের অর্জুনের তীর থাকত। তাহলে দেশের প্রতিটি সেক্টরে যেতাম এবং দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করে ফ্রিজ করে রাখতাম। (৪) বহুদিন পূর্বে মনোবিজ্ঞানী এরিক ফ্রোম বলেছিলেন, বিংশ শতাব্দীর প্রধান সমস্যা হল ইশ্বরের মৃত্যু আর একবিংশ শতাব্দীর প্রধান সমস্যা হল মানুষের মৃত্যু। কথাগুলোকে বুঝার জন্য বরং এভাবে বিশ্লেষণ করা যাকঃ বিংশ শতাব্দীতে মানুষের মধ্যে মানবতা ছিল। প্রেম-প্রীতি ও ভালোবাসা ছিল। ইশ্বর যেটা মনে প্রাণে চান। মানুষে আর ইশ্বরে তখন মিলেমিশে একাকার হয়ে গিয়েছিল। তাই সাদা বাংলায় ইশ্বরের মৃত্যু ঘটেছিলো। অপরদিকে একবিংশ শতাব্দীতে মানুষ বড় স্বার্থপর মায়ামমতা বিহীন এক জড়-জীবে পরিণত হয়েছে। যেখানে মনুষ্যত্ব বোধের কোন বালাই নেই। ইশ্বর এখানে নির্দ্বিধায় ছড়ি ঘুরাতে পারেন। তাই সোজা ভাষায় বলা যায়, মানুষের তথা মানবতার মৃত্যু হয়েছে। চারপাশের এতসব কান্ডকারখানা দেখে আজ এরিক ফ্রোমকে বড় প্রাসঙ্গিক মনে হয়।। (৫)একজন ধর্ষক পুরুষ আর যে মহিলা একজন খাঁটি পুরুষকে ধোঁকা দেয় উভয়েই সমান অপরাধী । ধরুন একটা লাল সোফায় একটি মেয়েকে ধর্ষণ করা হলো। ঠিক অন্য কোনখানে একজন মহিলা তার স্বামীকে ঠকিয়ে এক বড়লোক ছেলেকে নিয়ে সে একই লাল সোফায় বসে টিভি দেখছে। আপনার কাছে কোনটা বেশি অপরাধ বলে মনে হয়। Hollywood movie "Nocturnal animals" এ এর একটা সুন্দর উত্তর উপরোল্লিখিত লাল সোফার মাধ্যমে দেওয়া হয়েছে( আমি রেফারেন্স দিয়ে কথা বলি। চাইলে দেখে আসতে পারেন। এটা বুঝার জন্য আপনার মস্তিষ্কের ব্যবহার করতে হবে।) কিন্তু বর্তমান বঙ্গীয় সমাজে একজন ধর্ষককে যতটা খারাপ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়, একজন বিশ্বঘাতক, কুলাঙ্গার,প্রতারক নারীকে ততটা খারাপ ভাবে উপস্থাপন করা হয় না। এর জন্য নারীবাদী প্রচারণা, মিডিয়ার ভন্ডামি, কিছু পুরুষদের সিম্প মানসিকতা, হাজার বছরের জাজমেন্টাল ও প্রি-ডিটারমাইন্ড ধারণা (নারী অবলা, দুর্বল, বুক ফাটে তো মুখ ফাটে না সহ আরো নানা হাবিজাবি) বহুলাংশে দায়ী। তাই বলে আমাকে ভাববেন না যে আমি একজন ধর্ষককে সাপোর্ট করছি। আমি শুধু লিঙ্গ নিরপেক্ষ বিচারের প্রার্থনা করছি। আমি মানুষ নির্যাতন বা মানবাধিকার আইনের পক্ষে। এতেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। আর এ দেশের মিডিয়াগুলো ও নারীকে মানুষ বলে মনে করে না। দেখবেন রাস্তায় কোন অ্যাকসিডেন্ট হলে খবর ছাপবে নারী সহ তিন জন আহত। আমার কাছে ব্যাপারটা খুব অদ্ভুত লাগে।আর এতে করে অনেকে নারী কার্ড ও ভিকটিম কার্ড খেলার সাহস পায়। সেদিন একজনকে বলতে শুনলাম (তিনি উচ্চ পদস্থ) এ দেশের মহিলারা নাকি আমাদের values এর ধারক ও বাহক। হতে পারে, আবার না ও হতে পারে।এটা একান্তই উনার নিজস্ব অভিমত। আমি মনে করি আমরা সবাই এ দেশের values এর ধারক ও বাহক। তাই সকল অবিচার অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলছি আমি। এটাই যে প্রগতিশীলতা। (৬)অতীত মানুষের জীবনে একটা 4th subject. এটাকে বেশ গুরুত্ব না দেওয়াই ভালো।। (৭)যখন কোন পুরুষ কোন স্ত্রী লোকের দুর গুণকে সুগুণ দেখে তখন মনে কর ঐ পুরুষ এমন এক পথে যাচ্ছে যেখানে তাকে অপমানিত হয়ে অনুতাপ করা ছাড়া আর কিছু করার উপায় জানা থাকবে না। স্ত্রীলোকের শত্রু তো স্ত্রী লোক হয়। সংসারে তো পুরুষের বিনা কারণে বদনাম হয়।। (৮) A problematic man can't solve the problems of another problematic man. (৯) Agronomy শব্দটি আমি প্রথম দেখতে পাই হুমায়ূন আহমেদের সৌরভ উপন্যাসে। কিন্তু তার অর্থ জানতাম না। আসলে এর অর্থ হল the study of agriculture and husbandary. (১০) Time comes only when the time is used properly. (১১) সামুদ্রিক ঝড়কে যতই আমরা খারাপ বলি না কেন এটি আমাদের উপকারেও আসে। একটি হারিকেন বিষুবীয় অঞ্চলের উত্তাপ ও শক্তি ঠেলে দেয় অপেক্ষাকৃত শীতল মেরু অঞ্চলের দিকে।এতে পৃথিবীতে আবহাওয়াগত ভারসাম্য বজায় থাকে। (১২) আমরা কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে করতে যখন সামনে অগ্রসর হই তখন মনের অজান্তে বলে ফেলি জানার কোন শেষ নেই।সত্যিই কি জানার কোন শেষ নেই? Truely speaking জানার কোন শেষ নেই। বিষয়টাকে বরং formal education ও informal learning এ দুটির আলোকে বিবেচনা করা যাক। Informal learning এ আপনি বলতেই পারেন জানার কোন শেষ নেই। যেহেতু সব বিষয়ে আপনার জানাশোনা নেই। তাই পাণ্ডিত্য ফলাতে পারবেন না। আপনাকে বরং টপিক ওয়াইজ অগ্রসর হতে হবে। কিন্তু formal education এ আপনি কখনো বলতে পারবেন না জানার কোন শেষ নেই। বরং আপনাকে আপনার সাবজেক্টের দক্ষ খেলোয়াড় হতে হবে। ভাইভা বোর্ডে যদি আপনাকে প্রশ্ন করা হয় ( অবশ্যই সাবজেক্ট থেকে)। আর আপনি যদি উত্তরে বলেন জানার কোন শেষ নেই। তাহলে এটা কাজের কোন কথা হলো না।আপনি ব্যর্থ হবেন। ভালো ফলাফল করতে পারবেন না। কোন learning টা আপনার জন্য বেশি প্রয়োজন সেটা নির্ধারণ করার দায়িত্ব একমাত্র আপনার। কিন্তু এটা ধ্রুব সত্য হলো যে পড়াশোনা ছাড়া জীবনে সফলতা লাভ করার আর কোন সহজ রাস্তা নেই।। (১৩) The main difference between success and failure is that failure is the past event where success is the result of present hard works. (১৪) মাধ্যমিকে পড়ার সময়ে ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে দুটি পেসেজ থাকত। একটাকে seen আরেকটাকে unseen বলা হতো। তো আমি সব পেসেজের প্রথম মাল্টিপল চয়েস প্রশ্নের উত্তর দিতে সব সময় ভুল করতাম। অথচ এটা সবচেয়ে সহজ থাকত।এ দেখে আমাদের ইংরেজি স্যার একদিন বলেই বসলেন-এটা কী তোমার মুদ্রা দোষ নি বা? খালি প্রথম প্রশ্নের উত্তরে ভুল করে বস। আমি এ মুদ্রা দোষ এখনো ছাড়তে পারিনি। সোজা জিনিসে আজো ঝামেলা পাকিয়ে দেই।। (১৫) যে কোন আদর্শের বা দর্শনের বা ধর্মের বা কোন মতবাদের নির্মম বলি হয় গরীবেরা কিন্তু তার ফল ভোগ করে ধনীরা। এটিকে বিস্তারিত ভাবে বুঝিয়ে আমি বলতে পারব না। আর বলার সময় ও আসেনি। এতে আমি অনেকের চক্ষুশূল হতে পারি। নানা হয়রানির মুখোমুখি হতে পারি। (১৬) Wealth blinds a man. It allures a man to be avarice. Actually, it is of no avail where knowledge enlightens a man. It gives him strength and power. It has many other uses also. (১৭) If one generates a new idea, we should respect it, we should not neglect it with squint eyed. (১৮) ম্যুর তার নীতিশাস্ত্রের আলোচনায় বলেছেন, এমন অনেক জিনিসই আছে যেগুলো স্বয়ং ভালো এগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ হল ব্যক্তির প্রতি অনুরাগ ও নান্দনিক উপভোগ। (১৯) এ বঙ্গদেশে মানুষের পরিচয় তার প্রফেশন বা সম্পদের উপর নির্ভর করে। তাই এখানে মনুষ্যত্ব কাজ করে না। কারণ অধিকাংশ মানুষ আপনাকে আপনার প্রফেশন অনুযায়ী ট্রিট করবে। (২০) লেখার জন্য তিনটা জিনিস দরকার। যথাঃ ( ১) অবিশ্রাম পাঠ (২) নিরবচ্ছিন্ন ভ্রমণ (৩) তৃপ্তিকর সঙ্গম। (২১) একটি মতের বিরুদ্ধে কথা বলতে বা একটি মত উপড়ে ফেলে আরেকটি প্রতিষ্ঠা করতে অনেক ত্যাগ ও সাহসের প্রয়োজন হয়। (২২) সবার মতো আমিও বলছি ধৈর্য্য, ধৈর্য্য এবং ধৈর্য্যই হচ্ছে সাফল্যের চাবিকাঠি।। (২৩) আমার কোন মেধা বা প্রতিভা নেই। আমি শুধু চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমি হোমারের সে কথাই জানি।মানুষ শুধু লড়াই করতে জানে কিন্তু সাফল্য দান আল্লাহর হাতে।। (২৪) তোমার একটি স্বপ্ন যদি গাছের আড়ালে চলে যায় তবে আরেকটি স্বপ্ন দেখার চেষ্টা কর। কারণ স্বপ্নের কোন শাখা-প্রশাখা নেই। (২৫) তোমার এক ফোঁটা রক্ত ও যদি মানুষের কাজে লাগে। তবে জেনে রেখ সেটি কোন রক্ত নয় যেন এক ফোঁটা ঠান্ডা পানি যা মানুষের মনকে সতেজ করে তোলে। (২৬) মুসলিম গ্রানাডার লোরসা দখল করে খ্রিস্টান সেনাপতি আলনসো ফাজার ডো সমস্ত মুসলিম অধিবাসীকে হত্যা করেন। তারপরে তিনি মন্তব্য করেন, আমি মোজাকার দখল করি এবং সেখানে এমন কার্য করি যে রাস্তা সমূহে রক্তের প্রবাহ ছোটে। (এল.পি হার্ভে, ইসলামিক স্পেন, ১২৫০-১৫০০) সেদিন লাইব্রেরিতে পড়ছিলাম। লাইনটি দেখার সাথে সাথে নোট করে ফেললাম। ভাবলাম আপনাদের সাথে শেয়ার করি। মানুষ কতটা নৃশংস আর পাথর মনের অধিকারী হলে এ রকম মন্তব্য করতে পারে।। (২৭) অনুকাব্যগুলোকে অনেকটা দুর্গাদেবীর অকাল বোধনের সাথে তুলনা করা যায়। (২৮) একজন সাহিত্যিককে বিচার কর তার সমগ্র সাহিত্য কর্ম দিয়ে কোন খন্ড কাজ দিয়ে নয়। (২৯) বাঁচতে যদি চাও ওরে, মরার আগে মরো তবে। করো তুমি আপন ভাবনা। ও মনরে, করো তুমি আপন সাধনা। (৩০) মাইকেল সের্ভেটাস ফুসফুসের বিজ্ঞানসম্মত ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন। তার এই ব্যাখ্যা ধর্মবিরুদ্ধ ছিল বলে তাকে পুড়িয়ে মারা হয়। তার লেখা বইটিকে ও নষ্ট করা হয়। চিন্তা করুন ঐ সময়ের গির্জাগুলো কতটা প্রগতি বিরোধী আর বিজ্ঞান বিরোধী ছিলো। যদিও তারা এসব কর্মকান্ডের জন্য ক্ষমা চাচ্ছে এখন। আর বাংলাদেশে এসব করে কিছু কাঠ মোল্লারা আর তথাকথিত ধর্মীয় ভাবাবেগ ধারণকারী জড় বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষেরা। এখন কাউকে পোড়ানোর যুগ নেই। সম্ভব হলে তারা তা ও করত। আমি এতে ধর্মের কোন দোষ দেখি না।।

ছবি
সেকশনঃ সাধারণ পোস্ট
লিখেছেনঃ তালাল উদ্দিন তারিখঃ 12/05/2024
সর্বমোট 132 বার পঠিত
ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুণ

সার্চ

সর্বোচ্চ মন্তব্যকৃত

এই তালিকায় একজন লেখকের সর্বোচ্চ ২ টি ও গত ৩ মাসের লেখা দেখানো হয়েছে। সব সময়ের সেরাগুলো দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন